A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
Home / Cricket / ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের নাকানি-চুবানি খাওয়াতে যে অস্ত্র ব্যবহার করবে মুস্তাফিজরা

ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের নাকানি-চুবানি খাওয়াতে যে অস্ত্র ব্যবহার করবে মুস্তাফিজরা

মুশফিক ভাই নতুন একটা জিনিস করছি, দেখেন তো কেমন হয়?’ বলের গ্রিপটা দুই আঙুলের উল্টো পাশে ধরে এরপর নেটে মুস্তাফিজ যে বলটা করলেন তা ফুলটস হয়ে ব্যাটে পড়ল! পাশে দাঁড়ানো বোলিং কোচ চম্পাকার মুচকি হাসি- কি, ‘নাকল’ করতে চেয়েছিলে?

এটা এখন করতে হবে না তোমাকে। মুস্তাফিজের মতো এদিন তাসকিনও নেটে কিছু ভেরিয়েশন আনতে চেয়েছিলেন স্লোয়ারে। তবে সেই সেশনে সবচেয়ে সফল ছিলেন বোলার আবু হায়দার রনি।

তার বেশ কিছু স্লোয়ারে এদিন ভীষণ খুশি কোচ কোর্টনি ওয়ালশ। বোলিংয়ের মধ্যে গতির হেরফের করিয়ে ভারতের বিপক্ষে একটা চমক দেখাতে চাইছেন তিনি। আর সেটাই হতে পারে এই ‘নাকল’ বোলিং! যেটা অনেকটা ক্যারম বোলিংয়ের মতো, তবে পেসারদের মধ্যে এটা প্রথম এনেছেন জহির খান।

আর তারই শিষ্য মুম্বাইয়ের শার্দুল ঠাকুর তার এই বিশেষ ডেলিভারি ‘নাকল’ দিয়েই সবাইকে নাকানি-চুবানি খাওয়াচ্ছেন। এখন পর্যন্ত তিন ম্যাচে ৫ উইকেট শিকার করেছেন তিনি তার এই বিশেষ অস্ত্র ব্যবহারেই।

আজ ভারতের বিপক্ষে সে একই অস্ত্র ব্যবহার করা হতে পারে টাইগার পেসারদের মধ্যে থেকেও। রুবেলকে প্রায় দু’বছর ধরে এই বোলিংয়ের অনুশীলন করাচ্ছেন ওয়ালশ। যেটাকে অবশ্য তিনি নাম দিয়েছিলেন ‘বাটারফ্লাই’ ডেলিভারি। তাসকিনও এক বছর সাধনার পর এই অস্ত্রের মালিক হয়েছেন। ‘

আমাদের রুবেলই এই ডেলিভারি করতে পারে। তাসকিন তো চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে রস টেলরের উইকেটটি নিয়েছিল এই নাকল বোলিং দিয়ে। আসলে টি২০-তে পেসারদের ভেরিয়েশন খুব কার্যকর হয়ে থাকে। সেখানে আমাদের বোলাররা যদি সেটা কাজে লাগাতে পারে, তাহলে দারুণ ব্যাপার হবে।’

গতকাল অনুশীলনের এক ফাঁকেই এ বিশেষ অস্ত্রটি নিয়ে নিজেদের শক্তির কথা জানাচ্ছিলেন রিয়াদ। তবে রুবেল এখনও এই ‘নাকল’ নামের অস্ত্রটি এ টুর্নামেন্টে ব্যবহার করেননি। ‘ওটা বিশেষ একটা ডেলিভারি, সব সময় হয় না। সেটা সব সময় ব্যবহার করাও ঠিক নয়। তবে প্রয়োজনে অবশ্যই করব।’ রুবেল বরং তার ইয়র্কার নিয়েই খুশি।

আসলে ক্রিকেটে এই বিশেষ ডেলিভারিটি এসেছে বেসবলের মতো একটি খেলা ‘নাকবল’ থেকে। যেখানে বলকে সুইং করানোর একটি বিশেষ কৌশল ব্যবহার করা হতো। ক্রিকেটেও জহির খান আর ভুবেনশ্বর কুমাররা সুইং করানোর জন্য ওই কৌশলটি অস্ত্র হিসেবেই ব্যবহার করে আসছেন।

যেখানে বোলার রানিংয়ের গতি না বদলেই স্লোয়ার দিতে পারেন, কখনও কখনও এ ধরনের বল স্কিড করে যায়। কখনও কখনও ব্যাকস্পিন করে, কখনও আবার শর্ট অব লেন্থে এসে বাউন্সও করে। বোলারের গ্রিপ না বুঝে থাকলে এ ধরনের বল ব্যাটসম্যানকে বিভ্রান্ত করবেই। বিশেষ এ অস্ত্রটি আয়ত্তে আনতে এখন কাজ করছেন মুস্তাফিজ। তবে এটা নাকি অনেক সাধনার ব্যাপার।

‘এ ধরনের বোলিং করতে হলে এক-দুই মাসের অনুশীলনে হবে না। এটা নিয়ে কাজ করতে হয় বছরের পর বছর।’ এখনও সেভাবে পুরো অস্ত্রটি আয়ত্তে না আনতে পারলেও রুবেল আশাবাদী, প্রয়োজনের সময় ব্যাটসম্যানকে বিভ্রান্ত করতে পারবেন তিনি। ইদানীং আবু হায়দার রনিও নেটে টানা বোলিং করার ফাঁকে দু-একটা ‘নাকল’ ট্রাই করছেন।

তবে চাম্পাকা চান না, এই অস্ত্র পুরোপুরি আয়ত্তে না নিয়ে সেটা যুদ্ধে ব্যবহার করতে। এদিন নেটে তাই রুবেল, তাসকিনের সঙ্গে লেন্থ বোলিং নিয়েই কাজ করেছেন বেশি। এদিন তাসকিনকে দিয়ে চার ওভার বোলিং করিয়েছেন তিনি, বলে দিয়েছিলেন, এই সেশনের পর তুমি আমাকে বলবে কোন ধরনের বল কতগুলো করেছ তুমি।

পরে যখন তার কাছে হিসাবটা জানতে চান তখন তাসকিন হেসে দিয়ে জানান, ‘দুটো নাকল করার চেষ্টা করেছি।’ রনিও হিসাব দিতে গিয়ে একটি ‘নাকলে’র কথা জানান। আজ ম্যাচে যদি তারা এমন দু-একটি ‘নাকল’ চালাতে পারেন তাহলে ভারতীয় ব্যাটসম্যানরাও নাকানি-চুবানি খেতে পারেন!

About admin

Check Also

অবশেষে ভিসা পেয়েছেন মিরাজ, যাচ্ছেন রাতে

মেহেদী হাসান মিরাজ অবশেষে যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা পেয়েছেন। টেস্ট দলের এ সদস্য উইন্ডিজ সফরে রোববার দিবাগত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website is Protected by WordPress Protection from eDarpan.com.