A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
Home / Others / ভাত পড়েনি পেটে। এক কেজি আপেল আর আঙুর দিয়েই লাঞ্চ সারলেন ধোনি

ভাত পড়েনি পেটে। এক কেজি আপেল আর আঙুর দিয়েই লাঞ্চ সারলেন ধোনি

ভাল জামা কাপড়ের দিকে ঝোঁক ছিল ভারত অধিনায়কের। রেলওয়ে থেকে একবার সব খেলোয়াড়কে ট্রাকশুট দিয়েছিল। ধোনিরা ছিলেন রেলওয়ের খেলোয়াড়। ধোনির সেই ড্রেস পছন্দই হয়নি।

মহেন্দ্র সিংহ ধোনির কি মনে আছে কৌশিক চক্রবর্তীর কথা? টমাসের চায়ের দোকানের ঘুগনি-পাউরুটি আর ইডলির স্বাদ কি এখনও ‘মাহি’ পান? খোঁজ রাখেন টমাসের? এই টমাসের দোকানেই তো সকালের অনুশীলনের শেষে ঘুগনি-পাউরুটি আর ইডলি খেতেন তিনি। বন্ধুদের সঙ্গে সেখানেই চলত নিরন্তর আড্ডা।

খড়্গপুর স্টেশন থেকে দূরের সেই আতপ চালের দোকানটা কি এখন চিনতে পারবেন মাহি? এক দুপুরে সেই দোকানটা বন্ধ থাকায় লাঞ্চে ভাতই মুখে তুলতে পারেননি রাঁচির রাজপুত্র। ভাতের পরিবর্তে সেদিন কী খেয়েছিলেন মাহি? কৌশিক চক্রবর্তী ছিলেন ধোনির প্রথম অধিনায়ক।

বিশ্বজয়ী অধিনায়ক তখন খড়্গপুর স্টেশনের টিকিট চেকার। কৌশিক বলছিলেন, ‘‘আতপ চালের ভাত খেত মাহি। এক দুপুরে ওই দোকানটা বন্ধ ছিল। ধোনি এক কেজি আপেল আর এক কেজি আঙুর কিনল। তা থেকে আমাদের অল্প কিছু দিল। বাকিটা সবই নিজে খেয়ে ফেলল।’’ খেতে ভালবাসতেন ধোনি।

কবীর সুমনের ‘এই শহর জানে আমার প্রথম সব কিছু’ গানটা খুব খেটে যায় ধোনির ক্ষেত্রে। খড়্গপুরের অনেকেই দেখেছেন ধোনির উত্থান। এখানেই তো চাকরিজীবনের বেশ খানিকটা সময় কাটিয়েছেন ধোনি। একবার এক বন্ধুর সঙ্গে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। এক হাতে বল মেরে গ্যালারির বাইরে ফেলবেন। তিনটে সুযোগ দেওয়া হয় রাঁচির রাজপুত্রকে। প্রথম শটেই ধোনি তা গ্যালারির বাইরে পাঠিয়ে দেন। বাজি জেতার পরে দশ গ্লাস লস্যি খেয়েছিলেন ধোনি। তা দেখে তো বিস্মিত হয়ে গিয়েছিলেন সবাই।

ভাল জামা কাপড়ের দিকে ঝোঁক ছিল ভারত অধিনায়কের। রেলওয়ে থেকে একবার সব খেলোয়াড়কে ট্রাকশুট দিয়েছিল। ধোনিরা ছিলেন রেলওয়ের খেলোয়াড়। ধোনির সেই ড্রেস পছন্দই হয়নি। কৌশিক বলছিলেন, ‘‘বিকেলে গিয়ে ধোনিকে দেখি লোয়ারটা কেটে হাফপ্যান্ট করে ফেলেছে। আর আপারটা কেটে গেঞ্জি বানিয়েছে।’’

গোটা ক্রিকেটবিশ্ব জানে ধোনি উইকেটকিপার। অথচ আগে তিনি না কি মারাত্মক জোরে বল করতেন। একবার দলবল নিয়ে হাজারিবাগে টুর্নামেন্ট খেলতে গিয়ে তো ঝড় তুলে দিয়েছিলেন ধোনি। ক্যাপ্টেন কৌশিককে আগেই ‘মাহি’ জানিয়েছিলেন, তিনি ওপেন করবেন। কিন্তু সুযোগ পাননি। এক ওপেনার ফিরে যেতেই রাগে গজগজ করতে করতে ধোনি কাউকে কিছু না-বলেই নেমে পড়েন ব্যাট হাতে। তার পরে চলল ধ্বংসলীলা। ৩৭ বলে ১৪০ রান করেছিলেন সে দিন।

এই সব ঘটনা কেউই জানেন না। কৌশিকদের স্মৃতিতে তা ভীষণরকম জীবন্ত। ধোনির বায়োপিকে এগুলোই হয়তো তুলে ধরা হবে। হয়তো হবেও না। সুশান্ত সিংহ রাজপুত ধোনির ভূমিকায় অভিনয় করছেন। চলচ্চিত্রে নাকি ধোনি সম্পর্কে থাকবে অকথিত অনেক গল্প।

কৌশিক, সিদ্ধার্থ, জয়েশ শুক্লাদের কাছে গল্পের যা সম্ভার রয়েছে, তা দিয়ে খুব সহজেই চেনা যায় মানুষ ধোনিকে। শীর্ষে পৌঁছনোর সোপান তো তৈরি হয়েছিল খড়্গপুর থেকেই। ধোনির কি ছোট ছোট সেই সব ঘটনা এখন আর মনে আছে? বড্ড জানতে ইচ্ছে করে।এবেলা

About admin

Check Also

দুঃসংবাদ ! মিনহাজুল আবেদীনের বাসায় বিশাল ডাকাতি

জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক ও সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর মোহাম্মদপুরের নবোদয় হাউজিং সোসাইটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website is Protected by WordPress Protection from eDarpan.com.